Tag Archives:

bangla

What is your dream destination?

ভূস্বর্গ ভয়ঙ্কর সুন্দর

ছোটবেলায় রূপকথার গল্প পড়ে নিজেকে রাজপুত্র হিসেবে কেইবা কল্পনা করেনি! সেই যে রাজপুত্র যে কিনা পঙ্খিরাজে করে সাত সমুদ্র-তের নদী পাড়ি দিয়ে গভীর সমুদ্রের তলা থেকে সিন্দুক খুলে দৈত্যের প্রাণভোমরা বের করে নিয়ে আসত! স্বপ্নে, সেই রাজপুত্রের মত কতইনা ঘোড়ার পিঠে চড়ে দিক দিগন্তে ঘুরে বেড়িয়েছি। বাস্তবে সেই ঘোড়াতে চড়তে পারলাম পাহালগামে এসে - কিন্তু রাজপুত্রের মত নয়, অনেক মুলামুলি করে, অনেক টাকা দিয়ে - দুরু দুরু বক্ষে। শুধু ভয়, কখন যেন পড়ে যাই। আমি যদি পড়ে নাও যাই, ঘোড়াটা যদি পড়ে যায়?...
Continue reading...

ওলন্দাজদের শহরে

ষোলশ শতাব্দীর ঘটনা। মার্কো পোলোর কল্যাণে ততদিনে পশ্চিমারা বুঝে গিয়েছেন যে পূর্বের দিকে ধন-সম্পদের কোনও শেষ নেই। ভারতবর্ষ থেকে ইন্দোনেশিয়া পর্যন্ত মসলা, ফসল আর নীলের হাতছানি। ওখানে কোনও মতে পৌঁছাতে পারলেই হয়, ‘নেটিভদের’ ঠেঙ্গিয়ে বড়লোক হওয়া শুধু সময়ের ব্যপার। সমস্যা বাঁধল অন্য জায়গায়। তখনকার দিনে তো আর এ যুগের মত উড়োজাহাজ ছিলনা যে উঠলাম আর পৌঁছে গেলাম এক দিনের ভেতরে। জাহাজ ভাসিয়ে পাড়ি দিতে হত উত্তাল সমুদ্র। ইউরোপ থেকে দিনের পর দিন, রাতের পর রাত রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে মাস ছয়েক...
Continue reading...

কলম্বো থেকে এল্লা

সাধারণত সারা বছর অফিস থেকে কোনও ছুটি নেওয়া হয়না - শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা - শুধু কাজ করে যাওয়া। এটা অবশ্য আমি উপভোগই করি। বছর শেষে ভাবলাম যে একটা দুই সপ্তাহের ছুটি নিব। চোখটাও খুব সমস্যা করছিল - ডি-জেনারেশন শুরু হয়ে গিয়েছে। তাই ভাবলাম ঘুরতে যাওয়ার সময় চোখটাও দেখিয়ে আসি, চেন্নাইতে নাকি খুব ভাল চোখের হাসপাতাল আছে। ম্যাপ নিয়ে বসলাম যে চেন্নাই থেকে চোখ দেখিয়ে আর কোথায় যাওয়া যায়। তাজমহল দেখার শখ আমার অনেকদিন ধরেই। ভাবছিলাম যে চেন্নাই থেকে সরাসরি দিল্লীতে চলে যাব নাকি - সেখান থেকে - কাশ্মীর।...
Continue reading...

ভিউ কার্ডের দেশে পদার্পণ

ইমিগ্রেশনের লাইনে দাঁড়াতেই, সবুজ পাসপোর্ট দেখে, একজন সাহায্যকারী, পাশের একটা লাইন দেখিয়ে, ওখানে দাঁড়াতে বলল। দেখলাম, যে ওটা ওয়ার্ক ভিসার লাইন। যখন বললাম যে আমি পর্যটক, তখন তাদের চোখ রীতিমত কপালে উঠল। যখন বুঝল যে আমি একা আর সঙ্গী একটা ব্যাগ ছাড়া আর কিছুই না, তখন ইমিগ্রেশন অফিসার পাশে মুখ ফিরিয়ে কি যেন বলল। সাথে সাথে ছুটে আসল আরও দুজন। সবাই একবার করে পাসপোর্টের পাতা একটা একটা করে উল্টাতে লাগল। যুগপৎ ভাবে শুরু হল জেরা। কি করি, কেন এসেছি, কবে যাব, কোথায় যাব, কত টাকা আছে, হোটেল বুকিং কোথায়,...
Continue reading...

একই ফ্রেমে দুই শত্রু

মিশরের পুরাণ অনুযায়ী, সেব (Geb) ছিল পৃথিবীর দেবতা আর আকাশের দেবী ছিল নাট (Nut)। তাদের ঘরে জন্ম নেয়, ওসিরিস (Osiris), সেথ (Set), নেফথিস (Nephthys), আইসিস (Isis) আর হ্যারোএরিস (Haroeris) । সেথ আর ওসিরিস ছিল ছেলে আর নেফথিস ও আইসিস ছিল মেয়ে। এই চার ভাইবোনের ভেতর সেথ বিয়ে করে নেফসিসকে আর ওসিরিস বিয়ে করে আইসিস কে। ওসিরিস ছিল খুব ভালো। ওসিরিসের শাসনকালে পৃথিবীতে ছিল সুখ আর শান্তি। কিন্তু এই শান্তিতে বাঁধ সাধল তার ভাই, সেথ। সে ছিল অরাজকতা এবং নৃশংসতার দেবতা। ক্ষমতার লোভে সেথ তার ভাই...
Continue reading...

নোবেল জয়ীর সাইকেল

বাংলাদেশের মানিকগঞ্জে জন্ম লোকটার, কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিজে তার নাম রেখেছিলেন, আজ থেকে ৮৩ বছর আগে, ১৯৩৩ সালে। ঢাকার সেইন্ট গ্রেগরি বিদ্যালয় দিয়ে যার পড়াশুনার হাতেখড়ি সেই তিনিই কালক্রমে, শান্তিনিকেতনের পথ ভবন, কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজ, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে কেমব্রিজের ট্রিনিটি কলেজের পথ মাড়ালেন। প্রেসিডেন্সি কলেজে পড়ার সময়ই তার মুখগহ্বরে কর্কট রোগ বাসা বাঁধে। সে প্রায় ৬৮ বছর আগের ঘটনা। ডাক্তাররা বলে দিলেন ১৫ শতাংশ বাঁচার সম্ভাবনা আছে, তাও সময় বড়জোর পাঁচ বছর। কিন্তু, বিধির...
Continue reading...

সীমানা ছাড়াতে চাই

মানুষের চেয়ে শক্তিশালী প্রাণী অনেক আছে। বাঘের সামনে খালি হাতে যাওয়া তো দূরের কথা, অনেকগুলো পিঁপড়ার মাঝেও মানুষ অনেক অসহায়। মানুষের খেতে হয় তিনবেলা, ঘুমাতে হয় নিয়মিত, একটু এদিক থেকে ওদিক হলেই ভয়ে কুঁকড়ে যায়। তিলে তিলে গড়া কত সাধনার ফসল একটা সামান্য মশার কামড়েও শেষ হয়ে যেতে পারে। কিন্তু এই মানুষেরই কী অসাধারণ মানসিক শক্তি, কী অসামান্য সাহস। শারীরিক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও এই মানুষই বরফ ঢাকা, পাতলা হয়ে আসা অক্সিজেনের পরোয়া না করে, হিমালয়ের ওপরে উঠে যাচ্ছে। মহামান্য এডমুণ্ড হিলারি আর...
Continue reading...

বর্ণিল স্টকহোম

১ বারবারা হাটন তার ১৮ বছরের জন্মদিনের আগে হয়তো কল্পনাও করতে পারেননি তার জন্য জন্মদিনে কী চমক অপেক্ষা করছে! জন্মদিনে তিনি তার বাবার কাছ থেকে উপহার পেলেন আস্ত একটা ইয়ট। কালের বিবর্তনে অনেক ঘটনার মধ্য দিয়ে সেটা এখন একটা হোটেল –  ম্যালারড্রটনিঙ্গেন (Mälardrottningen) হোটেল। সেখানেই আমাদের এবারের গন্তব্য। এই ইয়টটি অনেক ঘটনার সাক্ষী। একসময় অনেক নামি দামি অভিনেতা, অভিনেত্রীদের পদভারে গমগম করত এই ইয়ট। বারবারা হাটন অনেক উচ্চাভিলাষী জীবনযাপনে অভ্যস্ত ছিলেন। স্যার আলফ্রেড হিচককের অসংখ্য...
Continue reading...